এবার ডিজিটাল হেলথ মিশনের অধীনে প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য Unique Health Card! বিস্তারিত একনজরে..

0

এবার আধার কার্ডের মতো স্বাস্থ্য কার্ডও দেওয়া হবে। ডিজিটাল হেলথ মিশনের (digital health mission) অধীনে সরকার প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য ইউনিক হেলথ কার্ড (unique health card) তৈরি করতে যাচ্ছে। যা একটি ডিজিটাল কার্ড, হুবহু আধার কার্ডের মতোই হবে। আধার কার্ডের মতোই একটি নম্বও দেওয়া হবে। যার মাধ্যমে নির্দিষ্ট ব্যক্তির স্বাস্থ্যকে চিহ্নিত করা যাবে। এই কার্ডের মাধ্যমে চিকিত্‍সক রোগীর স্বাস্থ্য সম্পর্কে জানতে পারবেন।

এবার ডিজিটাল হেলথ মিশনের অধীনে প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য Unique Health Card! বিস্তারিত একনজরে..

Read more-অবশেষে আদালতে দাঁড়িয়ে ক্ষমা চাইলেন পর্ষদ সভাপতি, নিয়োগের নির্দেশ হাইকোর্টের

পরিকল্পনা অনুযায়ী, এই ইউনিক হেলথ কার্ড থেকে জানা যাবে কোথায় কার কাছে নির্দিষ্ট ব্যক্তি চিকিত্‍সার জন্য গিয়েছিলেন। এছাড়াও নির্দিষ্ট ব্যক্তির স্বাস্থ্য সম্পর্কিত প্রতিটি তথ্য এই ইউনিক হেলথ কার্ডে রেকর্ড করা যাবে। এই কারণে রোগীকে তার সঙ্গে সর্বত্র ফাইল নিয়ে যেতে হবে না। চিকিত্‍সক কিংবা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এই ইউনিক হেলথ কার্ডের আইডি দেখে রোগীর অবস্থা সম্পর্কে জানতে পারবে। সেই ভিত্তিতে চিকিত্‍সাও শুরু করা যাবে। এই কার্ডের মাধ্য নির্দিষ্ট ব্যক্তি কোন কোন সরকারি প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত তাও জানতে পারবেন। সেই ব্যক্তি আয়ুষ্মাণ ভারতের অধীনে চিকিত্‍সার সুবিধান পান কিনা তাও এই কার্ডের মাধ্যমে জানা যাবে।

Read More-ত্রিপুরায় অভিষেকের পদযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা জারি করল বিপ্লব দেবের পুলিশ

আধার কার্ডের মতো ইউনিক হেলথ কার্ডের অধীনে সরকার প্রত্যেক ব্যক্তির স্বাস্থ্য সম্পর্কিত ডেটাবেস তৈরি করবে। ই ঈইডি দিয়ে কোনও ব্যক্তির স্বাস্থ্য সম্পর্তিক বিবরণ রেকর্ড করে রাখা হবে। এই আইডির সাহায্যে কোনও ব্যক্তির রেডিক্যাল রেকর্ড দেখা যাবে। কোনও ব্যক্তি যদি চিকিত্‍সকের কাছে যান, তাহলে এই কার্ডটি দেখাতে হবে। এই কার্ড থএকে চিকিত্‍সকও জানতে পারবেন আগে কোন চিকিত্‍সা হয়েছিল, কোন চিকিত্‍সকের পরামর্শ নেওয়া হয়েছিল এবং কোন ওষুধ খেয়েছিলেন ওই রোগী। এর মাধ্যমে সরকার জনগণকে চিকিত্‍সা ক্ষেত্রে সাহায্যে করতেও সক্ষম হবে।

কোনও ব্যক্তির ইউনিক হেলথ কার্ড তৈরি করতে মোবাইল নম্বর এবং আধার নম্বর নেওয়া হবে। যা হবে ইউনিক হেলথ কার্ডের মূল ভিত্তি। যার জন্য সরকার একটি হেলফ অথরিটি গঠন করবে, যার দায়িত্ব হবে তথ্য সংগ্রহ করা। যাঁর হেলথ আইডি বানাতে হবে, তাকে তাঁর স্বাস্থ্য রেকর্ড সংগ্রহ করার জন্য স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে। এই ভাবেই কাজ এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে।

একটি পাবলিক হাসপাতাল, কমিউনিটি হেলথ সেন্টার, হেলথ অ্যান্ড ওয়েলনেস সেন্টার বা ন্যাশনাল হেলথ ইনফ্রাস্ট্রাকচার রেজিস্ট্রির সঙ্গে যুক্ত স্বাস্থ্য সেবা প্রদানকারী ব্যক্তি কোনও ব্যক্তির হেলথ আইডি তৈরি করতে পারবেন। কোনও ব্যক্তি https://healthid.ndhm.gov.in/register-এ গিয়ে নিজের রেকর্ড নথিভুক্ত করে স্বাস্থ্য আইডি তৈরি করতে পারবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here