এবার থেকে শহরে চালু হচ্ছে ‘সিটি ট্র্যাভেল পাস’, এক টিকিটেই বাস-ট্রাম-ফেরি

0

কলকাতার  যাত্রী পরিষেবাকে তরান্বিত করতে ‘হপ অন হপ অফ’ পাস চালু করছে রাজ্য পরিবহন নিগম। এই  ‘হপ অন হপ অফ’ পাস নিয়ে দিনভর শহর কলকাতায় যত বার খুশি বাস , ট্রাম বা ফেরিতে ভ্রমণ করা যাবে যাত্রীরা। আগামি ২১ জানুয়ারি থেকে এই পাস পাওয়া যাবে বলে পরিবহন দফতর সূত্রে খবর। মূলত লন্ডন ও সিঙ্গাপুরে সিটি ট্যুরের ক্ষেত্রে যাত্রীদের জন্য যে টিকিট ব্যবস্থা রয়েছে তারই আদলে চালু হচ্ছে এই পাস। এর পোশাকি নাম ‘সিটি ট্র্যাভেল পাস’। এর দাম ধার্য করা হয়েছে ১০০ টাকা। তবে কেউ যদি এক সঙ্গে ২০টি বা তার বেশি পাস কেনেন, সেক্ষেত্রে টিকিটের দামে ১০ শতাংশ ছাড় পাওয়া যাবে বলে জানা যাচ্ছে।

ডব্লিউবিটিসি-র এক আধিকারিক বলেন, “ট্রেন বা বিমানে ভ্রমণ করার ফাঁকে কোনো ভ্রমণার্থী যদি কলকাতায় সারা দিন ঘুরে বেড়ানোর সুযোগ পান, তা হলে তাঁর ক্ষেত্রে এই পাস কার্যকরী ভূমিকা নেবে।” ভ্রমণকারীদের সুবিধার জন্য বিভিন্ন রুটের খুঁটিনাটি তথ্য দিয়ে গাইড ম্যাপও তৈরি করা হচ্ছে। যাঁরা কলকাতায় ঘুরতে আসেন বা যাঁদের এই শহরে নিয়মিত বিভিন্ন ধরনের পরিবহণ ব্যবহার করার প্রয়োজন হয়, তাঁদের কথা মাথায় রেখেই এই পাস চালু করা হচ্ছে বলে জানান দফতরের আধিকারিক। তিনি আরও বলেন, এই পাস নিয়ে ‘সিটি অফ জয়’-এ যেমন খুশি ভ্রমণ করা যেতে পারে। একটি পাস কিনে হাওড়া থেকে ফেরিতে নদী পেরিয়ে মিলেনিয়াম পার্কে এসে সেখান থেকে কলকাতার বিভিন্ন দ্রষ্টব্য স্থান গুলো ঘোরা যেতে পারে।

এছাড়া ডব্লিউবিটিসি ১০০ টাকায় ট্রাম পাস-ও চালু করছে। এই পাস নিয়ে মহানগরে ট্রামে চড়তে পারবেন পারবেন যাত্রীরা। ডব্লিউবিটিসি-র ম্যানেজিং ডিরেক্টর বলেন, “শহরের নিয়মিত যাত্রী ও দর্শনার্থীদের সুবিধার জন্যই এই  সিটি ট্র্যাভেল পাস ও ট্রাম পাস চালু করা হচ্ছে। এর বড়ো সুবিধা হল একই দিনে ট্রাম, বাস বা ফেরিতে চড়ার জন্য বার বার টিকিট কাটার ঝামেলা পোহাতে হবে না”। বাস ও ট্রামের কন্ডাক্টর এবং ফেরির টিকিট কাউন্টার থেকে কেনা যাবে এই পাস। এছাড়া বিমানবন্দর, হাওড়া ও শিয়ালদহ স্টেশনেও এই পাস পাওয়া যাবে। পাশাপাশি ডব্লিউবিটিসি-র ওয়েবসাইট থেকেও এই পাস বুক করা যাবে বলে জানা যাচ্ছে।

Previous article২০১৪ প্রাথমিকে নিয়োগের পরীক্ষার উত্তরপত্র ফের মূল্যায়ণ করতে হবে পর্ষদকে, নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের
Next articleউপহার হিসেবে ভুটানের জন্য কোভিশিল্ডের ১.৫ লক্ষ ডোজ পাঠাল ভারত

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here