কোভিড আতঙ্কের মধ্যেই এবার ভয় দেখাচ্ছে বার্ড ফ্লু! হিমাচল থেকে কেরল জারি সতর্কতা

0

দেশে এখনও শুরু হয়নি করোনার  টিকাকরণ। কোভিড আতঙ্কের মধ্যেই এবার ভয় দেখাচ্ছে বার্ড ফ্লুও । এর আগে রাজস্থানে  শয়ে শয়ে কাক, ময়ূর মারা যাওয়ার খবর মিলেছিল। ক্রমশ তা ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে অন্যান্য রাজ্যেও।

ইতিমধ্যেই মধ্যপ্রদেশ , কেরল ও হিমাচল প্রদেশেও  জারি হয়েছে সতর্কতা। উত্তরপ্রদেশে যোগী প্রশাসনও বার্ড ফ্লু নিয়ে মঙ্গলবার উচ্চপর্যায়ের বৈঠক করে। পরে সেখানেও জারি করা বয় অ্যালার্ট। দেশের একের পর এক  রাজ্যে শয়ে শয়ে পাখির মৃত্যু ভাবাচ্ছে প্রশাসনকে

 বার্ড ফ্লু হল H5N1 ভাইরাস বাহিত এক ইনফ্লুয়েঞ্জা, যার সংক্রমণে পাখিদের মধ্যে দেখা যায় প্রবল শ্বাসকষ্ট। অত্যন্ত ছোঁয়াচে এই অসুখ ছড়িয়ে পড়তে পারে মানুষের মধ্যেও। যার প্রকোপে মৃত্যুও হতে পারে। ফলে প্রয়োজন অতিরিক্ত সতর্কতার

রাজস্থানের ঝালওয়ার, কোটা, বারান, যোধপুর থেকে পাখিদের মৃত্যুর খবর সামনে আসার পরই নড়েচড়ে বসে রাজ্যের প্রশাসন। জারি করা হয় বার্ড ফ্লু অ্যালার্ট। রাজস্থানে এখনও পর্যন্ত মোট ২৫২টি কাকের মৃত্যু হয়েছে৷ শুধুমাত্র ঝালওয়ার জেলাতেই ১০০ কাক মারা গিয়েছে। বারণে ৭২, কোটায় ৪৭, পালিতে ১৯, যোধপুরে ও জয়পুরে ৭টি করে কাক মারা গিয়েছে।

হিমাচল প্রদেশে ইতিমধ্যেই প্রায় আড়াই হাজার পরিযায়ী পাখি মারা গিয়েছে। তার মধ্যে অর্ধেকের বেশি পাখির মৃত্যু হয়েছে রাজ্যের রং জলাভূমিতে। প্রথমে মৃত্যুর কারণ সঠিক ভাবে ধরা না গেলেও এখন স্পষ্ট, বার্ড ফ্লু ভাইরাসেই মৃত্যু হয়েছে ওই পাখিদের।   কাঙ্গড়া জেলার পং ড্যাম লেকে কয়েক’শো পরিযায়ী পাখির মৃত্যুর কারণ বার্ড ফ্লু বলে নিশ্চিত করা হয়েছে। সরকারি সূত্রে খবর, লেকে বিপুল সংখ্যক পরিযায়ী পাখির মৃত্যুর কারণ অ্যাভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা বা বার্ড ফ্লু কি না, নিশ্চিত হতে টেস্ট করানো হয়েছিল। রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

 মধ্যপ্রদেশের ইন্দোর, খারগোন, সেহোর ও আরও বহু জায়গাতেও হানা দিয়েছে বার্ড ফ্লু। গত দশ দিনে অন্তত চারশোটি মৃত কাকের সন্ধান মিলেছে। মৃত পাখিদের পরীক্ষা করে সন্ধান মিলেছে ভাইরাসের। প্রশাসনের তরফে কড়া নজর রাখা হচ্ছে এলাকার পোলট্রিগুলির উপরে।

একই ভাবে বার্ড ফ্লু ছড়িয়েছে কেরলেও। সেখানকার কোট্টায়াম, আলাপ্পুঝা, কারুভাট্টা, নেদুমুন্ডি-সহ অন্যত্র থাবা বসিয়েছে মারণ ভাইরাস। কেবল কোট্টায়ামের এক হাঁসের খামারেই মারা গিয়েছে ১,৭০০ হাঁস। সমস্ত আক্রান্ত এলাকার এক কিলোমিটার ব্যাসার্ধ জুড়ে মুরগি, হাঁস মিলিয়ে ৫০ হাজার পাখির কালিংয়ের নির্দেশ দিয়েছে কেরল সরকার।

হরিয়ানায় বিপুল সংখ্যক মুরগির মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে। প্রায় লক্ষাধিক মুরগির মৃত্যু অ্যাভিয়ান ফ্লু-তে আশঙ্কা করা হচ্ছে। গত ৫ ডিসেম্বর থেকে এখানে একের পর এক পাখি মৃত্যুর খবর আসছে।  বারওয়ালা অঞ্চলের ১১০ টি মুরগির খামারেরর মধ্যে প্রায় দুই ডজন খামারে রহস্যজনকভাবে পাখির মৃত্যু ঘটছে। । মুরগির মৃত্যুর পর এখন পঞ্চকুলা জেলা প্রশাসন তৎপর হয়েছে।

Previous articleআগামী ৯ জানুয়ারি রাজ্যে আসছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা
Next articleপৌষের শেষে রাজ্যে উধাও শীতের আমেজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here