দীর্ঘ প্রায় ৩৩ ঘণ্টায় লড়াইয়েও শেষ রক্ষা হল না, মৃত্যু মুম্বই ধর্ষণকাণ্ডের নির্ভয়ার

0

দীর্ঘ প্রায় ৩৩ ঘণ্টায় মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে প্রাণ হারালেন মুম্বই ধর্ষণকাণ্ডের নির্যাতিতা। ঘাটকোপারের রাজাওয়াড়ি হাসপাতালে তাঁর চিকিত্সা চলছিল। সেখানেই আজ সকালে তাঁর মৃত্যু হল। নির্যাতিতাকে বাঁচাতে একটি সার্জারি করা হলেও শেষ রক্ষা হয়নি। চিকিত্সকরা জানান, নির্যাতিতার শরীরে এত বেশি ক্ষত ছিল যে তা থেকে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছিল বাকি শরীরে। প্রচুর রক্তক্ষরণও হয়েছিল তাঁর। এর জেরে তাঁকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি।

দীর্ঘ প্রায় ৩৩ ঘণ্টায় লড়াইয়েও শেষ রক্ষা হল না, মৃত্যু ধর্ষণকাণ্ডের নির্ভয়ার

Read More-এবার সিবিআই, ইডির মতো কেন্দ্রীয় সংস্থাকে তলব করতে চলেছেন বিধানসভার স্পিকার

অন্ধেরি পূর্বের সাকিনাকা এলাকার খায়রানি রোডের ধারে দাঁড়িয়ে থাকা এক টেম্পোর মধ্যে থেকে মহিলাকে অচৈতন্য অবস্থায় উদ্ধার করেছিল পুলিশ। ৩২ বছরের ওই মহিলাকে ধর্ষণ ও নির্যাতন চালানোর অভিযোগ ওঠে। চিকিৎসকদের রিপোর্ট অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে, ওই মহিলার সঙ্গে পাশবিক অত্যাচার করা হয়। জানা যায়, ধর্ষণের পর নির্যাতিতার যৌনাঙ্গে লোহার রড ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। এরপরই দিল্লির নির্ভয়াকাণ্ডের সঙ্গে তুলনা হয় এই ঘটনার।

Read More-কয়লাকাণ্ডে ফের অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে তলব ED-র

শুক্রবার ভোররাতে নির্যাতিতা মহিলার বিষয়ে জানাতে প্রথমবার মুম্বই পুলিশের কন্ট্রোলরুমে ফোন করা হয়েছিল। খবর পেয়ে মহিলাকে উদ্ধআর করেছিল পুলিশ। তদন্তে নেমে পুলিশ ইতিমধ্যেই এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। ধৃত ব্যক্তি ছাড়া অন্য কেউ ঘটনার সঙ্গে যুক্ত কিনা সে বিষয়ে খতিয়ে দেখতে জিজ্ঞাসাবাদ জারি রেখেছে পুলিশ। ধৃতের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৬ এবং ৩০৭ ধারায় মামলা রুজু হয়েছে।

Read More-গঙ্গার ঘাটে প্রবেশ করতে হলে দিতে হবে বিশেষ পরীক্ষা, হরিদ্বারে এবার কড়া পদক্ষেপ

The victim of the Mumbai rape died after fighting to the death for about 33 hours. He was undergoing treatment at Rajawari Hospital in Ghatkopar. He died there this morning. A surgery was performed to save the victim but the last was not saved. Doctors said the victim had so many wounds on his body that the infection spread to the rest of the body. He also had a lot of bleeding. Due to this it was not possible to save him.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here