পশ্চিমী ঝঞ্জার প্রভাবে জাঁকিয়ে ঠান্ডা থেকে বঞ্চিত বঙ্গবাসী ,উত্তরবঙ্গে বৃষ্টির পূর্বাভাস

0

শনিবার শহর ও শহরতলিতে ঘন কুয়াশা , আকাশ আংশিক মেঘলা। জেলায় জেলায় শীতের আমেজ থাকলেও কলকাতায় বেলা বাড়লে শীত উধাও হবে। কলকাতার নুন্যতম তাপমাত্রা ১৮.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। পশ্চিমী ঝঞ্জার জেরে আরও কয়েকদিন এমন চলতে থাকবে বলে জানা গিয়েছে। আগামী ২-৩ দিন রাজ্যে ঘন কুয়াশার দাপট থাকবে বলে পূর্বাভাস আলিপুর আবহাওয়া দফতরের।

উত্তর ভারত থেকে প্রচুর পরিমাণে প্রবেশ করছে পশ্চিমী ঝঞ্জা। ফলে তার প্রভাব পড়ছে রাজ্যে। চড়ছে তাপমাত্রার পারদ। ফলে ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে এসেও জাঁকিয়ে ঠান্ডা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন বঙ্গবাসী। এদিন সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২১  ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সেইসঙ্গে রাজ্যে রয়েছে ঘন কুয়াশার দাপট। গত  ৩-৪ দিন ধরেই রাজ্যে ঘন কুয়াশার দাপট চলছে। ফলে ভোরের দিকে অনেকেই সমস্যায় পড়েছেন। বিশেষ করে গাড়ি চালকেরা। হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী ২-৩ দিন কুয়াশার দাপট থাকবে। তার পর আকাশ খানিকটা মেঘলা থাকতে পারে। একই পরিস্থিতি জেলাগুলিতেও। উত্তরবঙ্গে দার্জিলিং, কালিম্পংয়ে ফের বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরেই মাঝেমধ্যে সেখানে বৃষ্টি হচ্ছে। আগামী ২ দিন তা চলতে পারে।

আবহাওয়ার এই খামখেয়ালিপনা চলবে আরও বেশ কয়েকদিন। বঙ্গোপসাগরে ফের একটি ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হয়েছে। তার প্রভাবেও প্রচুর পরিমাণে জলীয় বাষ্প প্রবেশ করছে রাজ্যে। আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস অনুযায়ী, ১৬ তারিখ পর্যন্ত রাজ্যে শুষ্ক আবহাওয়াই থাকবে।  ফলে এখনও রাজ্যে জাঁকিয়ে শীত পড়ার সম্ভাবনা কম। পশ্চিমী ঝঞ্জা ও বঙ্গোপসাগরের ঘূর্ণাবর্ত, এই জোড়া ফলায় সরাসরি প্রভাব পড়ছে রাজ্যের আবহাওয়ায়। জাঁকিয়ে শীতের আমেজ উপভোগ করতে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে বঙ্গবাসীকে।

Previous articleএবার করোনা আক্রান্ত মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী কনরাড সাংমা, রয়েছেন হোম আইসোলেশনে
Next articleআজ বাংলায় আসছেন সংঘপ্রধান মোহন ভাগবত, রয়েছে একাধিক কর্মসূচি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here