পূর্ব লাদাখের প্যাংগং সো থেকে সেনা সরানো নিয়ে চিনের সঙ্গে চুক্তির কথা সংসদে জানালেন রাজনাথ সিং

0

অবশেষে কাটতে চলেছে পূর্ব লাদাখে ভারত-চিন অচলাবস্থা। আপাতত প্যাংগং লেকের দক্ষিণ ও উত্তর প্রান্ত থেকে সেনা সরিয়ে নেবে দুই পক্ষ বলে সংসদে জানান রাজনাথ। তিনি বলেন যে পুরো এই বিবাদের সময় ভারতীয় সেনার অদম্য সাহস ও দক্ষতার জেরে পাল্লা সবসময়ই ভারতের ভারী ছিল। আলোচনার মাধ্যমে যে সমঝোতা সূত্র বেরিয়েছে, তাতে ভারতের কোনও ক্ষতি হয়নি, বলে রাজ্যসভায় আশ্বাস দেন রাজনাথ সিং।

ঠিক কী ভাবে হবে এই ডিসএনগেজমেন্ট, তারও বিস্তারিত বিবরণ দেন তিনি। আপাতত প্যাংগংয়ের উত্তর কূলে ফিঙ্গার এইট অবধি পিছিয়ে যাবে চিন। ভারত নিজেদের যে স্থায়ী ঘাঁটি আছে ফিঙ্গার তিনে, সেখানে থাকবে। আপাতত ওই এলাকায় ফিঙ্গার চার থেকে আট অবধি কোনও পক্ষই টহলদারি দেবে না। যখন সামরিক ও কূটনৈতিক স্তরে আলোচনা শেষ হবে, তারপরেই ফের টহলদারি শুরু হবে। এভাবেই গত বছরের এপ্রিলের পূর্বের পরিস্থিতিতে ফিরে যাওয়া সম্ভব হবে বলে জানান প্রতিরক্ষামন্ত্রী। ইতিমধ্যেই সেনা সরানোর কাজ শুরু হয়েছে ও ধাপে ধাপে এই কাজ হবে ও দুইপক্ষই এটি যাচাই করে নেবে বলে জানিয়েছেন রাজনাথ সিং। সেই কাজ শেষ হওয়ার ৪৮ ঘণ্টা পর ভারত ও চিনের কম্যান্ডারদের মধ্যে ফের আলোচনা হবে বলে তিনি জানান।।একই ভাবে প্যাংগং লেকের দক্ষিণ প্রান্ত থেকেও সেনা সরানো হবে। প্রসঙ্গত, চিনের সেনারা ফিঙ্গার ৪ অবধি এসে গিয়েছিল। সেখান থেকে তারা ফিঙ্গার ৮-এর পূর্ব দিকে চলে যাবে। ভারতের ব্যাখ্যা অনুযায়ী,  ফিঙ্গার ৮ দিয়ে যায় প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা। অর্থাৎ চিনকে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখার অন্যদিকে পাঠিয়ে দিতে সক্ষম হচ্ছে ভারত। এপ্রিল থেকে এই যাবৎকালে যে সব কাঠামো দুই দেশ ওই অঞ্চলে তৈরি করেছে, সেগুলি ভেঙে ফেলা হবে বলেও জানান প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

এদিন রাজনাথ সিং রাজ্যসভায় ফিরিস্তি দেন যে কীভাবে অতীতে চিনের কাছে জমি হারিয়েছে ভারত। কিন্তু এবার যে প্রথম থেকেই কড়া হাতে পরিস্থিতিকে চালিত করা হয়েছিল ও ভারতের অবস্থান স্পষ্ট ভাবে বেজিংকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল, সেই কথা বলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী। এখনও যে পূর্ব লাদাখে কিছু জায়গা নিয়ে সমস্যা আছে, সেই কথা স্বীকার করে নেন রাজনাথ সিং। তবে তিনি বলেন আলোচনার মাধ্যমেই এই সমস্যার সমাধান মিলবে বলে তিনি আশা করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here