ফাইজারের পরে ভারতে কোভিড টিকাকরণের অনুমোদন চাইল সেরাম ইন্সটিটিউট

0

ভারতীয় সংস্থাগুলির মধ্যে প্রথম! জরুরি ভিত্তিতে করোনাভাইরাস টিকার ব্যবহারের জন্য ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়ার (ডিসিজিআই) কাছে আবেদন জানাল সেরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়া (এসআইআই)।

সূত্র উল্লেখ করে সংবাদসংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, মহামারীর ফলে উদ্ভূত অভাবনীয় পরিস্থিতি এবং বিশাল সংখ্যক মানুষের স্বার্থে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ‘ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেন্ট’-এর অনুমোদন চাওয়া হয়েছে। যে সম্ভাব্য টিকা যৌথভাবে তৈরি করেছে অ্যাস্ট্রোজেনেকা এবং সেটির উৎপাদন করেছে সেরাম।

ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে অক্সফোর্ডের ‘ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেন্ট’-এর তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চালাচ্ছে সেরাম। তাতে সহায়তা করছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর)।  গত মাসে আইসিএমআর জানিয়েছিল, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় পর্যায়ের ক্নিনিকাল ট্রায়ালের ফলাফলের উপর নির্ভর করে জরুরি ভিত্তিতে কোভিশিল্ড ব্যবহারের আবেদন জানানো হবে। আইসিএমআরের হিসেব অনুযায়ী, অনুমোদন পাওয়ার আগেই করোনা টিকার চার কোটি ডোজ তৈরি ফেলেছে সেরাম।

সূত্রের খবর, আবেদনে মোট চারটি ক্নিনিকাল পরীক্ষা-নিরীক্ষার উল্লেখ করেছে সেরাম। তার মধ্যে দুটি ব্রিটেনের এবং একটি করে পরীক্ষার ফল ভারত এবং ব্রাজিলের। সেই পরীক্ষা-নিরীক্ষায় দেখা গিয়েছে, উপসর্গযুক্ত এবং গুরুতর করোনা সংক্রমণের ক্ষেত্রে অত্যন্ত কার্যকরী হয়েছে কোভিশিল্ড। সেরামের তরফে জানানো হয়েছে, অন্যান্য করোনাভাইরাস টিকার মতোই ফল মিলেছে। যেহেতু আক্রান্তের সংখ্যা বেশি, তাই কোভিশিল্ডের ফলে করোনাভাইরাসের মৃত্যু হার এবং অসুস্থতা কমবে বলে আশা করা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here