ভোগান্তির আশঙ্কা! মেট্রো সম্প্রসারণের কাজের জন্য ৬ মাস বন্ধ থাকতে পারে ইএম বাইপাসের অভিষিক্তা মোড়

0

ভোগান্তির আশঙ্কা ইএম বাইপাসে। মেট্রো সম্প্রসারণের কাজের জন্য অন্তত মাস ছয়েক বন্ধ রাখা হবে ইএম বাইপাসের অভিষিক্তা মোড়। ইস্টার্ন মেট্রোপলিটান বাইপাসের ওপরে অবস্থিত ব্যস্ত মোড় গুলির মধ্যে একটি অন্যতম মোড় হল অভিষিক্তা মোড়। এমন গুরুত্বপূর্ণ একটি মোড় মাস ছয়েকের জন্য ‘ব্লকেজ’ করার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় ব্যাপক যানজট এবং ভোগান্তির আশঙ্কা করছেন নিত্যযাত্রীরা। কলকাতা ট্রাফিক পুলিশ সূত্রে খবর, নিউ গড়িয়া থেকে এয়ারপোর্টগামী নয়া মেট্রোলাইনের সম্প্রসারণের কাজ সম্পন্ন করতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামী দু-এক দিনের মধ্যেই এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে বলে সূত্রের খবর। একই সঙ্গে অভিষিক্তা মোড় বন্ধ রাখা হলে আসন্ন কয়েক মাসে লাগাতার যানজটের আশঙ্কা করে আগাম বেশকিছু পদক্ষেপের কথা চিন্তাভাবনা করছে কলকাতা ট্রাফিক পুলিশ। মোতায়েন থাকবে বাড়তি পুলিশ বাহিনীও।

রুবি ও গড়িয়ার মাঝে ১২ নং জাতীয় সড়ক বা ইস্টার্ন মেট্রোপলিটান বাইপাসের ওপর অবস্থিত অভিষিক্তা মোড়। তার উত্তর দিকে রুবি মোড়, দক্ষিণ দিকে গড়িয়া। এই অভিষিক্তা মোড়েই তৈরি হচ্ছে নয়া কবি সুকান্ত মেট্রো স্টেশন। ইএম বাইপাসের ওপর দিয়েই চলে গিয়েছে নিউ গড়িয়া থেকে এয়ারপোর্ট গামী মেট্রোর এই নতুন লাইন। ট্রায়াল রানের কাজ সম্পন্ন হয়েছে বুধবারই। এর পরেই নির্মাণকাজ আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে অভিষিক্তা থেকে কালিকাপুর এর মধ্যবর্তী জায়গায় বেশ কয়েকটি বাকি পড়ে থাকা পিলার নির্মাণের কাজ সম্পন্ন করতে চায় মেট্রো কর্তৃপক্ষ।

কলকাতা ট্রাফিক পুলিশ সূত্রে খবর, কালিকাপুর মোড়ের কাছে মেট্রোর শেষ ১০৯ নং নম্বর পিলারটি নির্মাণ করা হয়েছিল। তারপরেই অভিষিক্তা মোড়ে নির্মীয়মান  স্টেশনের কাছে নির্মাণ করা হয়েছে মেট্রোর ১১২ নম্বর পিলারটি। এই দুটি পিলারের মাঝে ১১০ এবং ১১১ নম্বর পিলার দুটির নির্মাণ বাকি রয়ে গিয়েছে। যার ফলে সংযোগ করা যাচ্ছে মেট্রো না দুটি মেট্রো স্টেশনের মাঝের লাইনটি। কলকাতা মেট্রোরেল এবং ট্রাফিক পুলিশ সূত্রের খবর, এই বাকি পড়ে থাকা দুটি পিলার নির্মাণ কাজের জন্যই আপাতত বন্ধ রাখতে হবে অভিষিক্তা মোড়। সূত্রের খবর, এই নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার জন্য প্রশাসনের কাছে অন্তত ৬ মাস সময় চাওয়া হয়েছে মেট্রোরেলের তরফে। তবে পরবর্তীকালে পরিস্থিতি বিবেচনা করে সেই সময় আরো বাড়তে পারে বলেই বিশেষজ্ঞদের ধারণা। যদিও এই বিষয়ে এখনও সরকারিভাবে কিছু জানানো হয়নি কলকাতা মেট্রো রেলের তরফে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here