‘মমতাকে কেউ ঠেলেনি ‘, সামনে এল প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ান

0

বুধবার সন্ধে থেকে তোলপাড় বাংলার রাজনীতি। তাঁর উপর আক্রমণ করার অভিযোগ তুলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পায়ে এবং বুকে ‘ব্যথা’ নিয়ে ‘বিধ্বস্ত’ মুখ্যমন্ত্রীকে গ্রিন করিডর করে নন্দীগ্রাম থেকে এসএসকেএমে নিয়ে এসে ভর্তি করা হয়েছে। কিন্তু কী হয়েছিল সেখানে? সংবাদ সংস্থা এএনআই এক প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান টুইট করেছে। নন্দীগ্রামের বাসিন্দা চিত্তরঞ্জন দাস বলেছেন, ‘গাড়ির দরজা খোলা ছিল। সমনের সিটে হাত জোড় করে বসেছিলেন মমতা। গাড়ি আস্তে আস্তে যাচ্ছিল। রাস্তার ধারের একটি পিলারে ধাক্কা লেগে দরজাটা মমতার পায়ে লাগে।’ চিত্তরঞ্জনবাবু এও বলেন, ‘কেউ ধাক্কা মারেনি। চার-পাঁচজন তো দূরের কথা,একজনও ছিলেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছাকাছি।’

যাঁরা সেই সময় সামনে উপস্থিত ছিলেন, তাঁরা বলছেন, রাস্তার ধারে লোহার পোস্ট ছিল। ভিড়ের মধ্যে গাড়ি এগোতে গিয়ে তা দরজায় লেগে গিয়েছে। তা গিয়ে দিদির পায়ে লেগেছে। সামনেই মিষ্টির দোকান থেকে বরফ নিয়ে লাগানো হয়। সেই সময় অনেল লোক জড়ো হয়ে গিয়েছিল। প্রত্যক্ষদর্শীরাই বলছেন, সেখানে অনেক লোক ছিল। প্রত্যক্ষদর্শীরাই বলছেন মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ ঠিক নয়।

প্রত্যশ্রদর্শী ছাত্র সুমন মাইতি

সোমবার রাতের সেই ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছেন ছাত্র সুমন মাইতি। তিনি বলেছেন, মুখ্যমন্ত্রীকে দেখতে বহু লোক জমায়েত করেছিল। মুখ্যমন্ত্রী গাড়ি থেকে নামার চেষ্টা করছিলেন। সেই সময় অনেকেই গাড়ির সামনে ভিড় করেন। সেই সময় মুখ্যমন্ত্রীর গলায় ও ঘাড়ে চোট লাগে। মুখ্যমন্ত্রীর গাড়ির দরজায় কেউ ধাক্কা দেয়নি বলেও জানিয়েছে সে। সুমন মাইতি জানিয়েছে, সে কোনও রাজনৈতিক দল করে না। গাড়ি সেই সময় খুব আস্তে এগোচ্ছিল।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here