শক্তি বাড়িয়ে এগিয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় বুরেভি, কেরলের চার জেলায় জারি লাল সতর্কতা

0

বঙ্গোপসাগরের গভীর নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড় বুরেভিতে বদলে গেছে গতকালই। শক্তি বাড়িয়ে এগিয়ে আসছে দক্ষিণের উপকূলের দিকে। মৌসম ভবন জানাচ্ছে, আজ দুপুরের মধ্যেই কন্যাকুমারীতে ঝড়ের দাপট দেখা যায়। বিকেলে মধ্যে শ্রীলঙ্কার উপকূলে পৌঁছে যাবে বুরেভি। ঝড়ের ল্যান্ডফল হতে পারে কেরলে। চার জেলায় লাল সতর্কতা জারি করা হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতি সামাল দেওয়ার জন্য কোমর বেঁধে তৈরি জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দলও। ঝড়ের অবস্থান এখন কোথায়? হাওয়া অফিস জানিয়েছে, পামবান থেকে ২০০ কিলোমিটার পূর্ব ও দক্ষিণপূর্বে অবস্থান করছে ঘূর্ণিঝড় বুরেভি। আজ বিকেল, সন্ধের মধ্যে শ্রীলঙ্কার ত্রিঙ্কোমালি এলাকা দিয়ে বয়ে যাবে। কোমোরিন এলাকা দিয়ে এই ঝড় সরবে আরও পশ্চিমে। কেরল ও তামিলনাড়ু উপকূলে সজোরে ধাক্কা দিতে পারে সাইক্লোন বুরেভি। বিশেষত কেরলের চার জেলা তিরুঅনন্তপুরম, কোল্লাম, আলাপুঝা এবং পাঠনমথিট্টায় লাল সতর্কতা জারি হয়েছে। তুমুল বৃষ্টি হতে পারে এই চার জেলায়। কমলা সতর্কতা জারি হয়েছে কেরলের আরও তিন জেলা কোট্টায়াম, এর্নাকুলাম ও ইদ্দুকিতে।

মৌসম ভবন জানাচ্ছে, দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে ঘনিয়ে ওঠা নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ের চেহারা নেওয়ার পরে পশ্চিম থেকে উত্তর-পশ্চিমে গতি বাড়াবে। কন্যাকুমারি ও তিরুঅনন্তপুরমে ঝড়ের দাপট বেশি দেখা যেতে পারে। লাল সতর্কতা জারি হয়েছে ইতিমধ্যেই। আগামী দুদিন ৫৫-৬৫ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইবে উপকূলবর্তী এলাকাগুলিতে। মত্‍স্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।

আগামী ৬ ঘণ্টার মধ্যে বঙ্গোপসাগরের দক্ষিণ-পশ্চিম থেকে উত্তর-পশ্চিমে সরবে ঘূর্ণিঝড় বুরেভি। ঝড়ের গতি হবে ঘণ্টায় ২৫ কিলোমিটার। বেলা ১২টা নাগাদ শ্রীলঙ্কার ত্রিঙ্কোমালির থেকে ১৪০ কিলোমিটার পূর্বে অবস্থান করবে। সে সময় কন্যাকুমারী থেকে উত্তর-পূর্বে ৫৫০ কিলোমিটারের মধ্যে থাকবে বুরেভি।

আজ রাতের মধ্যে শ্রীলঙ্কার উপকূল দিয়ে বয়ে যেতে পারে ঘূর্ণিঝড়। ঝড়ের গতি থাকবে ৮০-৯০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। উপকূলবর্তী এলাকাগুলি থেকে ৭৫ হাজার মানুষকে এখনই নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

আবহাওয়া দফতর থেকে বলা হয়েছে, তামিলনাড়ু, কেরল, পুদুচেরি, কারাইকাল, অন্ধ্রপ্রদেশের দক্ষিণ উপকূল ও লক্ষ্যদ্বীপে আগামীকাল অবধি তুমুল বৃষ্টি হবে। সেই সঙ্গেই থাকবে ঝোড়ো হাওয়ার দাপট। ঘূর্ণিঝড়ের প্রকোপ সামাল দিতে এখন থেকেই প্রস্তুতি নিচ্ছে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী (এনডিআরএফ)। উদ্ধারকাজের জন্য তৈরি থাকতে বলা হয়েছে নৌ বাহিনীকে, তৈরি রাখা হয়েছে হেলিকপ্টার, নৌকা। এনডিআরএফের কয়েকটি দল ইতিমধ্যেই পৌঁছে গেছে কন্যাকুমারী, তুতিকোরিন, তিরুনেলভেলি ও মাদুরাইতে। কেরলে ২ হাজার ৮৪৯টি ত্রাণ শিবির খোলা হয়েছে। উদ্ধারকাজের জন্য তৈরি রাজ্যের বিপর্যয় মোকাবিলা দলও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here