Sunday, December 4, 2022
Homeঅনান্যMukesh Ambani জেড প্লাস নিরাপত্তা পেতে চলেছেন মুকেশ আম্বানি।

Mukesh Ambani জেড প্লাস নিরাপত্তা পেতে চলেছেন মুকেশ আম্বানি।

Today Kolkata:- বর্তমানে ‘জেড’ ক্যাটাগরির নিরাপত্তা পাচ্ছেন। এবার রিলায়েন্স কর্ণধার তথা দেশের অন্যতম শীর্ষ শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির (Mukesh Ambani) নিরাপত্তা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। জেড প্লাস’ নিরাপত্তা দেওয়া হবে তাঁকে। এমনটাই জানিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। এখন থেকে ৫৮ জন কম্যান্ডো টানা ২৪ ঘন্টা তাঁকে পাহারা দেবেন। তাঁকে হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের দেওয়া এই রিপোর্টের ভিত্তিতেই তাঁর নিরাপত্তা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে নিরাপত্তা বৃদ্ধি করা হলেও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নিরাপত্তা সংক্রান্ত যাবতীয় খরচ বহন করবেন মুকেশ আম্বানি। বছর খানেক আগে মুকেশের বাড়ি অ্যান্তোলিয়ার কাছে একটি স্করপিও গাড়ি থেকে বিস্ফোরক উদ্ধার হয়। বিষয়টি একেবারেই হালকাভাবে নেননি গোয়েন্দারা।

Mukesh Ambani মুকেশ অম্বানীর পরিবারকে হুমকি দিয়ে আট বার ফোন! আটক ১।

তারপরই তাঁর নিরাপত্তা বাড়ানোর বিষয়ে চিন্তাভাবনা শুরু হয়। সম্প্রতি রিলায়েন্স কর্ণধারকে জেড ক্যাটাগরির নিরাপত্তা দেওয়া নিয়ে ত্রিপুরা হাই কোর্টে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়। রিলায়েন্স কর্ণধারকে কেন সর্বোচ্চ পর্যায়ের নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে তা জানতে চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের জবাব তলব করে ত্রিপুরা হাই কোর্ট। ত্রিপুরা হাই কোর্টের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় মোদী সরকার। শীর্ষ আদালতে স্বস্তি মেলার পরেই সবদিকে নজর রেখে মুকেশের নিরাপত্তা বাড়ানোর বিষয়ে চিন্তাভাবনা শুরু করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

Mukesh Ambani জেড প্লাস নিরাপত্তা পেতে চলেছেন মুকেশ আম্বানি।

Uttar Pradesh news রোগীর পেট কেটে উদ্ধার ৬৩টি চামচ, তাজ্জব চিকিৎসকরা।

Partha & Arpita জামিনের আবেদন করে পার্থ চাইলেন সাহায্য, কেঁদে ভাসালেন অর্পিতা।

Dada Saheb Falke “দাদা সাহেব ফালকে” পুরস্কার পাচ্ছেন কিংবদন্তি অভিনেত্রী আশা পারেখ।

MORE NEWS – তাজমহলের ৫০০ মিটারের মধ্যে ব্যবসায়িক কাজ বন্ধের নির্দেশ।

তাজমহলকে (Taj Mahal) বাঁচাতে পদক্ষেপ করেছে সুপ্রিম কোর্ট। অবিলম্বে এই স্মৃতিসৌধের ৫০০ মিটারের মধ্যে সব ধরনের ব্যবাসায়িক কাজকর্ম বন্ধ করতে হবে। সম্প্রতি আগ্রা ডেভেলপমেন্ট অথরিটিকে একথা সাফ জানিয়েছে সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতি সঞ্জয় কিশন কাঔল এবং বিচারপতি এএস ওকার ডিভিশন বেঞ্চ। ২০০০ সালেও এনিয়ে একই ধরনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তবে শেষ পর্যন্ত তা পুরোপুরি কার্যকরী করা হয়নি। ১৬৩১ সালে মুঘল সম্রাট শাহজাহান তৈরি করেছিলেন এই স্থাপত্য। এটি ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট বলেও পরিচিত। এর সৌন্দর্যের টানে দেশ-বিদেশ থেকে পর্যটকরা এখানে ভিড় জমান। CONTINUE READING

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -

- Advertisment -

Recent Comments