চাকরিতে বদলির জেরে ক্ষুব্ধ হয়ে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মঘাতী মহিলা চিকিত্‍সক

0

চাকরিতে বদলির জেরে ক্ষুব্ধ হয়ে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মঘাতী মহিলা চিকিত্‍সক। ফেসবুকে পোস্ট করে সরকারের বদলি নীতি নিয়ে নানা প্রশ্ন তুলে দিয়েছিলেন চিকিত্‍সক অবন্তিকা ভট্টাচার্য। একটানা প্রায় দুসপ্তাহ হাসপাতালে জমে-মানুষে টানাটানি চলেছে। শরীরের বেশিরভাগ অংশটাই পুড়েগিয়েছিল তাঁর। শেষ রক্ষা হল না। এসএসকেএমে চিকিত্‍সাধীন অবস্থায় মৃত্যু অবন্তিকা ভট্টাচার্য নামে ওই মহিলা চিকিত্‍সকের।

চাকরিতে বদলির জেরে ক্ষুব্ধ হয়ে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মঘাতী মহিলা চিকিত্‍সক

Read more-কৃষ্ণের জন্মভূমি মথুরায় বন্ধ হল মদ, মাংস বিক্রি, ঘোষণা যোগী আদিত্যনাথের

বেহালার বাসিন্দা অবন্তিকা ভট্টাচার্য। পেশায় চিকিত্‍সক অবন্তিকা গত ১৬ অগাস্ট নিজের ফেসবুক পেজে পোস্ট করে চাকরিক্ষেত্রে তাঁর চরম অস্বস্তির কথা লেখেন। আট বছর জেলায় কাজ করার পরেও পদোন্নতি না দিয়েই ফের তাঁকে বদলি করায় তাঁর চূড়ান্ত মানসিক যন্ত্রণার কথা তিনি জানান। চাকরি থেকে ইস্তফা দিলেই কী শান্তি মিলবে? ফেসবুকে এমনও লেখেন তিনি। এই পোস্টটি করার কিছুক্ষণের মধ্যেই গায়ে আগুন দেন চিকিত্‍সক অবন্তিকা ভট্টাচার্য। বেহালার বাড়িতেই গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন অবন্তিকা। অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাঁকে।

গত দুই সপ্তাহ ধরে এসএসকেএম হাসপাতালেই ভর্তি ছিলেন অবন্তিকা ভট্টাচার্য নামে ওই চিকিত্‍সক। তবে তাঁর শরীরের ষাট শতাংশের বেশি অংশ পুড়ে গিয়েছিল। অত্যন্ত সংকটজনক অবস্থায় ছিলেন তিনি। শেষমেশ চিকিত্‍সা চলাকালীন রবিবার রাতে অবন্তিকা ভট্টাচার্যের মৃত্যু হয়েছে। সহকর্মীর এই পরিণতিতে শোকের ছায়া রাজ্যের চিকিত্‍সক মহলে।

অ্যাসোসিয়েশন অফ হেলথ সার্ভিস ডক্টরস-এর রাজ্য সম্পাদক মানস গুমটা বলেন, ‘হৃদয়বিদারক একটি ঘটনা। তরতাজা চিকিত্‍সককে চলে যেতে হল। ওঁর পরিবারের সমস্যার কথা সংশ্লিষ্ট মহল জানত। ওঁর সন্তানের কঠিন অসুখ রয়েছে। মেদিনীপুর থেকে এবার ডায়মন্ডহারবারে পাঠালে বদলি নিয়ে প্রশ্ন তো উঠবেই। এটা প্রথম নয়, বেছে বেছে চিকিত্‍সকদের সঙ্গে এটা করা হচ্ছে।’ বদলির ক্ষেত্রে স্বজনপোষণেরও অভিযোগ তুলেছেন মানস গুমটা। অন্যদিকে, তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ তথা IMA-র রাজ্য সম্পাদক শান্তুন সেন অবন্তিকা ভট্টাচার্যের অকাল-মৃত্যুতে শোকজ্ঞাপন করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here