আজ রাজ্যে আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, রয়েছে একগুচ্ছ কর্মসূচি

0

আজ রাজ্যে আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। হুগলির সাহাগঞ্জে সভা রয়েছে তাঁর। সেখান থেকেই দূরমাধ্যমে উদ্বোধন করবেন কলকাতা মেট্রোর সম্প্রসারিত রুট নোয়াপাড়া থেকে দক্ষিণেশ্বর পর্যন্ত মেট্রো রুটের। বিধানসভা ভোটের আগে এই সফরেও বাঙালি আবেগকেই হাতিয়ার করলেন নমো। উস্কে দিলেন বিজেপির ‘সোনার বাংলা’ গঠনের স্বপ্ন। বাংলায় সফরের আগে তাঁর করা টুইটেই তা স্পষ্ট। বাংলায় টুইট করলেন প্রধানমন্ত্রী। জানালেন, কালীঘাটের সঙ্গে দক্ষিণেশ্বর কালীমন্দিরের যোগযোগের গুরুত্ব। টুইটবার্তায় দেশের অগ্রগতিতে বাংলার অবদানকেও স্মরণ করেছেন তিনি।

তবে, এই প্রথম নয়। নেতাজি জয়ন্তীতে বাংলায় বক্তব্য পেশ করেছেন প্রধানমন্ত্রীকে। গতবার রাজ্য সফরে এসে ভাষণ শুরু করেছিলেন বাংলায়। পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা ভোটের আগে যে গেরুয়া শিবিরের ‘পোস্টার বয়’-এর নজরে ভোটবাক্স তা ক্রমশ প্রকট হচ্ছে।

রাজ্য সফরের আগে প্রধানমন্ত্রী টুইটারে লিখেছেন, ‘বাংলার মহান ভূমিতে জন্মেছেন এমন সব ব্যতিক্রমী ব্যক্তিত্বরা দেশের অগ্রগতিতে অবদান রেখেছেন। সেই বাংলাকে উন্নয়নের শিখরে পৌঁছে দেওয়া আমাদের লক্ষ্য। সোমবার একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধনে আমি হুগলিতে হাজির থাকবো।’

দেশের প্রগতিতে যাঁদের বিশেষ অবদান রয়েছে, বাংলার পুণ্যভূমিতে সেই সব অসামান্য ব্যক্তিত্ব লালিত হয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গে যাতে সর্বোচ্চ মানের উন্নয়ন হয় তা নিশ্চিত করাই আমাদের লক্ষ্য এবং প্রয়াস। আমি আগামীকাল হুগলীতে যোগাযোগ সংক্রান্ত একগুচ্ছ প্রকল্পের উদ্বোধন করব।

এরপরই নমোর টুইটে উঠে এসেছে নোয়াপাড়া থেকে দক্ষিণেশ্বর পর্যন্ত মেট্রোর সম্প্সারিত রুটের বিষয়টি। তিনি লিখেন, ‘নোয়াপাড়া থেকে মেট্রো রেলের সম্প্রসারিত অংশ দক্ষিণেশ্বর পর্যন্ত জুড়বে। হুগলি থেকে তার উদ্বোধন হবে। এই প্রকল্পটি বিশেষ, কারণ কালীঘাট এবং দক্ষিণেশ্বরের মা কালী মন্দিরের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থায় এটি উন্নতি ঘটাবে। ভারতের মহান সংস্কৃতির জীবন্ত প্রতীক হল এই মন্দিরগুলি।’

হুগলী থেকে মেট্রো রেলের নোয়াপাড়া ও দক্ষিণেশ্বরের মধ্যে সম্প্রসারিত অংশটির উদ্বোধন করা হবে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে মা কালীর দুটি পবিত্র মন্দির কালীঘাট ও দক্ষিণেশ্বরের মধ্যে যোগাযোগ আরো উন্নত হবে, তাই এটি বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ। এই মন্দিরগুলি প্রাণবন্ত ভারতীয় সংস্কৃতির প্রতীক।

আজ নোয়াপাড়া থেকে দক্ষিণেশ্বর ৪.১ কিলোমিটার মেট্রো রুটের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। এই প্রকল্পে খরচ হয়েছে ৪৬৪ কোটি টাকা। পুরো টাকাটাই দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। রুট বাড়লেও সর্বোচ্চ ভাড়া ২৫ টাকা থাকছে বলেই মেট্রোর তরফে ঘোষণা করা হয়েছে। মঙ্গলবার থেকে সর্বসাধারণ এই পথে মেট্রোর চলাচল করতে পারবেন। কাজের দিনে এই রুটে ১৫৮টি ট্রেন চালচল করবে। ছুটির দিনে চলবে ১৫৬টি ট্রেন। শেষ মেট্রো মিলবে রাত সাড়ে ৯ টায়। সাত মিনিট অন্তর ট্রেন চলাচল করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here